ইসলামের আলোকে বিপদ-মুসিবত বুঝার পন্থাঃ করোনা ভাইরাস ফ্যাক্টর

অন্যান্য ইসলাম গাইড

প্রফেসর ডঃ মেহমেদ গরমেজ 

মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করছি তিনি যেন আমাদেরকে এই মহামারি থেকে রক্ষা করেন। মহান আল্লাহ যেন তার শাফি(আরোগ্যদানকারী) নামের ওসিলায় সমগ্র মানবতাকে শিফা দান করেন। মেডিসিন বিশেষজ্ঞদের হৃদয়ে মহান আল্লাহ যেন এই রোগের নিরাময়ের ইলহাম দেন, আল্লাহর কাছে এই দোয়া করি। তার অশেষ রহমত ও নিয়ামতের মাধ্যমে আমাদের মত দুর্বল বান্দাদের হৃদয় থেকে যেন সকল ভয় ও দুঃশ্চিন্তা দূরে করে দেন এই দোয়া করি। 

আজকে আমি ‘ইসলামে বিপদ-মুসিবত সমূহকে বুঝার পন্থা নিয়ে আলোচনা করব’। 
একজন মু’মিন হিসেবে এই ধরণের মুসিবত সমূহ কিভাবে বুঝা প্রয়োজন?
যেমনটা ধারণা করা হচ্ছে, সত্যি কি এটি একটি ইলাহী আজাব? নাকি কোন রহমত যা আমরা জানি না? 
কেউ কেউ মাঝে মধ্যে নিজেদের সীমানাকে অতিক্রম করে একে কিয়ামতের পূর্বক্ষণ বলে আখ্যায়িত করছেন। সত্যি কি তাই? নাকি কোন ইলাহী নিদর্শন বা শিক্ষা? 
আমাদের চিরন্তন ও শ্বাশত গ্রন্থ আল-কোরআন এই ব্যাপারে কি বলে? এই সকল ব্যাপারে রাসূলে আকরাম (সঃ) এর উপদেশ সমূহ কি? 
আমার স্বল্প জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার আলোকে এই বিষয় সমূহের জবাব দেওয়ার চেষ্টা করব। 

হ্যাঁ। বিশ্ব মানবতা এমন এক সমস্যার সম্মুখীন তা অতীতে আর কখনো দেখা যায়নি। সমগ্র মানবতা খুবই অল্প সময়ের ব্যবধানে নতুন একটি জগতে প্রবেশ করেছে। হয়তবা এর পরের ইতিহাস করোনা ভাইরাসের আগে ও করোনা ভাইরাসের পরে এই ভাবে লেখা হবে। তিন মাসের মত অল্প সময় আগে চীনের ঊহান শহরে উৎপত্তি হওয়া এই ভাইরাসটি সমগ্র মানবতাকে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য করেছে। মানুষের জীবন যাত্রা অচল হয়ে পড়েছে। দেশ সমূহ তাদের সীমানাকে বন্ধ করে দিয়েছে। ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এমনকি জামায়াতে ইবাদতেও বিরতি দেওয়া হয়েছে। হয়তবা ইতিহাসে এই প্রথম কাবা শরীফ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যার ফলে তাওয়াফ ও সায়ী সকল কিছুই বন্ধ। মদিনা ও মসজিদে আকসাও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সমগ্র মসজিদ সমূহ আবিদ বান্দাদের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে! রাস্তা-ঘাট, শহর-নগর ফাঁকা, সকল মানুষ আজ গৃহবন্দী! 

এতে কোন সন্দেহ নেই যে, বিশ্ব মানবতা প্রথমবারের মত এমন একটি মহামারিতে আক্রান্ত হয়নি। মানব জাতির ইতিহাস এই ধরণের মুসিবতে পরিপূর্ণ। এক অর্থে বলতে গেলে মানব জাতির ইতিহাস একই সাথে বালা-মুসিবত, বিপদাপদ, খরা, বন্যা ও দুর্যোগের ইতিহাস। কলেরা, ইনফ্লুয়েঞ্জা, SARS, এইচআইভি, টিফু ইত্যাদি ছোঁয়াছে রোগে এর পূর্বেও অনেক মানুষ মৃত্যুবরণ করেছে। 
ইসলামের ইতিহাসের শুরুতে হযরত উমর (রাঃ) এর শাসনামলে طاعون عمواس‎, ṭāwiʿna ʻimwas বা Plague of Emmaus এ ২৫ হাজার মানুষ মৃত্যুবরণ করেন। এদের মধ্যে অনেক বড় বড় সাহাবীও ছিলেন। গত শতাব্দীর শুরুতেও প্রথম বিশ্ব যুদ্ধ শেষ হতে না হতেই ইউরোপের জন সংখ্যার এক তৃতীয়াংশ মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। 

আজকের এই ভাইরাসের সাথে আগের ঐ সকল মহামারীর পার্থক্য কি? 
প্রিয় ভাইয়েরা, আগের ঐ সকল প্লেগ বা মহামারীর কোনটাই আজকের বা বর্তমানের এই ভাইরাসের সাথে মিলে না। ইতিহাসের কোন মহামারীও এই করোনা ভাইরাসের মত গ্লোবাল একটি মহামারীতে রূপ নেয়নি। হ্যাঁ সমগ্র মানবতা আজ গ্লোবাল একটি মহামারীর মুখোমুখী। সমগ্র মানবতা আজ একটি ভয় ও আতঙ্কের মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করছে। এই মহামারীর সামনে সমগ্র বিশ্ব-মানবতা আজ নিরুপায়। 
আর এই মহামারী এমন এক সময়ে দেখা দিয়েছে যেই সময়ে মানুষ অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে অনেক বেশী শক্তিশালী। এই মহামারী সমগ্র মানবতাকে এমন এক সময়ে গ্রাস করেছে যেই সময়ে জ্ঞান-বিজ্ঞান, প্রযুক্তি, যোগাযোগের ক্ষেত্রে মানুষ বিপ্লব ঘটিয়েছে এবং সমগ্র দুনিয়াকে ধ্বংস করতে সক্ষম এত বেশী পরিমাণে রাসায়নিক অস্র উৎপাদন করেছে। ন্যানো টেকনোলজির মাধ্যমে যখন মানুষের জন্য নতুন এক যুগের সূচনা করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে সেই সময়ে এই মহামারী দেখা দিয়েছে। চিকিৎসাবিদ্যা ও ঔষধ সেক্টর যখন সর্বোচ্চ শৃঙ্গে অবস্থান করছে, মানুষ মৃত্যুঞ্জয়ী হওয়ার জন্য গবেষণা করছে, মহাকাশে জীবনের সন্ধান করছে সেই সময়ে এই মহামারী এসেছে। মানুষ যখন তার আবিষ্কার নিয়ে অহংকার, আত্মম্ভরিতা, ও হিংসায় লিপ্ত এই সময়ে এমন একটি ভাইরাস তাদেরকে গ্রাস করে ফেলেছে যা মাইক্রস্কোপ ছাড়া দেখাও যায় না। আমরা সকলেই আজ গৃহবন্দি, অজানা এক পরিণতির জন্য সকলেই প্রহর গুনছি।
এই মুহূর্তে আমাদের ডাক্তার ও নার্সদের জন্য দোয়া করি, এই সময়ে সবচেয়ে বড় দায়িত্ব পালন করছেন তারা। আল্লাহ তাদের উপর সন্তুষ্ট হোন এবং তাদেরকে ধৈর্যের সাথে সেবাদান করার তওফিক দান করুন। 

গণমাধ্যম ও ডিজিটাল মিডিয়া সমূহ চীন থেকে ইতালি, ইরান থেকে যুক্তরাষ্ট্র পর্যন্ত কি হচ্ছে না হচ্ছে তা মুহূর্তের মধ্যে সবার সাথে শেয়ার করে জানিয়ে দিচ্ছে। 
কিন্তু একটি বিষয়কে সবাই ভুলে যাচ্ছে! আর এটাই হল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই বিষয়ের মানবিক, সামাজিক দিক নিয়ে এখনো কেউ কথা বলছে না। এর পেছনের রুহী, আধ্যাত্মিক ও মেটাফিজিক্যাল দিক নিয়ে এখনো চিন্তা গবেষণা ও লেখালেখি শুরু হয়নি। অথচ এই বিষয়টি আর শুধুমাত্র স্বাস্থ্যগত একটি বিষয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই, স্বাস্থ্যগত বিষয় থেকে অনেক আগেই বের হয়ে গেছে। 
অন্যান্য সকল বিষয়ের মত এই বিষয়েও মানুষজন মতভেদ করবে। বিজ্ঞানীগণ, দার্শনিকগণ, আলেম-উলামাগণ সহ সকলেই তাদের নিজেদের অবস্থান থেকে এই বিষয়ে ব্যাখা দাঁড় করাবেন। এই বিষয়টিকে শুধুমাত্র একটি দৃষ্টিকোন থেকে নয় সামগ্রিক একটি দৃষ্টিকোন থেকে বিশ্লেষণ করে একটি ফলাফলে পৌঁছাতে পারব। 
বিজ্ঞান এই বিষয়টি ব্যাখা করে তুলে ধরবে, দর্শন আমাদেরকে এই বিষয়ে চিন্তা করাবে আর দ্বীন এটাকে অর্থবহ করে তুলবে। দ্বীন বা ধর্মের দেওয়া অর্থ বিজ্ঞানের ব্যাখা এবং দর্শনের দেওয়া চিন্তাকে পাশ কাটিয়ে যাবে না। কারণ বিজ্ঞান হল মহান প্রভু কর্তৃক এই পৃথিবীতে স্থাপিত আয়াত সমূহের ব্যাখা দেয়। আর আকল ও চিন্তা হল মহান প্রভু কর্তৃক মানুষকে দেওয়া সবচেয়ে বড় ইহসান। 
আমরা যদি ইতিহাসের দিকে তাকাই তাহলে দেখতে পাই যে দ্বীনের দেওয়া উচ্চ অর্থবহতার বদৌলতেই মানুষ সকল প্রকার ভয়ভীতিকে পরাভূত করেছে, সকল সন্দেহ ও সংশয়কে দূরীভূত করেছে, মৃত্যুর ভয়কে পাশ কাটিয়েছে এমনকি কবির ভাষায় বলতে গেলে মৃত্যুকে হত্যা করেছে। আজকেও আমরা ইসলামের দেওয়া অর্থের মাধ্যমে আমরা যে সংকটময় সময় অতিক্রম করছি এই অবস্থা থেকে বের হয়ে আসতে পারব। তবে এই ক্ষেত্রে আকল ও বিজ্ঞানকে বাদ দিয়ে নয়। 

প্রিয় ভাইয়েরা, 
মানুষ যখন আল্লাহকে ভুলে গিয়ে শুধুমাত্র নিজেদের চিন্তা ভাবনার আলোকে চলত তখন কোন বিপদ মুসিবত আসলে মাঝে মধ্য শুধুমাত্র কুসংস্কার, মাঝে মধ্যে শুধুমাত্র জ্যোতির্বিদ্যা দ্বারা ব্যাখা করার চেষ্টা করত। অধিকাংশ সময় এই সকল বিপদ-আপদকে স্রষ্টাদের মধ্যকার যুদ্ধ বলে অভিহিত করত, কিংবা মাঝে মধ্যে গজবের সাথে সম্পৃক্ত করত। মাঝে মধ্যে অসৎ লোকদের কারণে এই সব বিষয় হচ্ছে বলে চালিয়ে দিত। তাকভীন ও তানযিলকে একত্রিত কারী ওহী তথা ইসলাম, মানুষকে সকল প্রকার কুসংস্কার ও ভ্রান্ত ধারণা থেকে মুক্ত করে সঠিক পথের সন্ধান দিয়েছে। 
ইলাহী ওহীকে তথা মানুষ, মহাবিশ্ব ও ওহীকে যদি আমরা সামগ্রিক ভাবে বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখতে পাই যে, সব কিছুর পূর্বে এই সকল বালা-মুসিবত সমূহ ইলাহী আদাত বা অভ্যাস নয়, এগুলো এক একটি হল ইলাহী আয়াত বা নিদর্শন। 
অনেক সময় ক্রোধ ও রাগের বশবর্তী হয়ে অনেকেই এগুলোকে আযাব বলে অভিহিত করে থাকেন। এই গুলো আসলে সেই অর্থে আযাব নয়। মহান আল্লাহ সূরা ফাতিরের ৪৫ নম্বর আয়াতে বলেন, 
﴿وَلَوْ يُؤَاخِذُ اللَّهُ النَّاسَ بِمَا كَسَبُوا مَا تَرَكَ عَلَىٰ ظَهْرِهَا مِن دَابَّةٍ وَلَٰكِن يُؤَخِّرُهُمْ إِلَىٰ أَجَلٍ مُّسَمًّى ۖ فَإِذَا جَاءَ أَجَلُهُمْ فَإِنَّ اللَّهَ كَانَ بِعِبَادِهِ بَصِيرًا﴾

অর্থঃ যদি কখনো তিনি লোকদেরকে তাদের কৃতকর্মের জন্য পাকড়াও করতেন তাহলে পৃথিবীতে কোন প্রাণসত্তাকে জীবিত ছাড়তেন না কিন্তু একটি নির্ধারিত সময় পর্যন্ত তিনি তাদেরকে অবকাশ দিচ্ছেন৷ তারপর যখন তাদের সময় পুরা হয়ে যাবে তখন আল্লাহ তাঁর বান্দাদেরকে দেখে নেবেন৷ 

সূরা ফুসসিলাতের ৪৬ নম্বর আয়াতে বলেন,
وَمَا رَبُّكَ بِظَلامٍ لِلْعَبِيدِ
তোমার রব তার বান্দাদের উপর মোটেই জুলুম করেন না। 
অনেকেই নিজেদের লিমিটকে ক্রস করে একে কিয়ামত বলে অভিহিত করছে। এটা মোটেই কিয়ামত নয়। কেননা কিয়ামত কখন হবে কোন নবীকে পর্যন্ত বলা হয়নি। আলামত সমূহ জানিয়ে দেওয়ার অর্থ কিয়ামতের সময় বলে দেওয়া এক কথা নয়। 

প্রিয় ভাইয়েরা, 
হ্যাঁ। আমাদের উপর যে মুসিবত এসেছে, কোরআনে আলোকে এটি একটি আয়াত বা নিদর্শন। এই নিদর্শন বা আয়াত থেকে সকল মু’মিনই ভিন্ন ভিন্ন শিক্ষা বের করবে। নিদর্শন সমূহ ইবারত সমূহের উপর ভিত্তি করে নয়, শিক্ষা বা ইবরেতের উপর পড়তে হয় বা বুঝতে হয়। মহান আল্লাহ বলেছেন, 
فَاعْتَبِرُوا يَاأُولِي الأبْصَارِ
হে দৃষ্টিশক্তির অধিকারীরা, আকলবানরা শিক্ষা গ্রহণ করো। 
এই আয়াতটির আদেশ একদম এই সকল বিষয়েই। কোরআন নুহের তুফানের মত একটি ঘটনাকেও মুসিবত হিসেবে নয়, মানুষের জন্য একটি আয়াত বা নিদর্শন বলে ঘোষণা করেছে। 
আল্লাহ বলেছেন, 
وَجَعَلْنَاهُمْ لِلنَّاسِ آيَةً 
অর্থঃ সারা দুনিয়ার লোকদের জন্য একটি শিক্ষণীয় বিষয়ে পরিণত করলাম। (ফুরকান-৩৭)

এই মুসিবতকে যখন একটি ইলাহী আয়াত হিসেবে পড়বে কেউ কেউ এর কারণকে মানুষ কর্তৃক দুনিয়াকে যতেচ্ছাভাবে ব্যবহার করার সাথে সম্পৃক্ত করবে। কেউ কেউ বলবে দুনিয়ার পক্ষে আর এত মানুষকে বহন করা সম্ভব হচ্ছে না বলেই এমন হচ্ছে। কেউ কেউ একে কাশ্মীর, আরাকান, ফিলিস্তিন, উইঘুর, সিরিয়া এবং ইয়েমেনের ট্রাজেডির সাথে সম্পৃক্ত করবে। বিভিন্ন দেশের সীমানা বন্ধ করাকে কেউ কেউ সিরিয়ান মুহাজিরগণ যেন ঐ সকল দেশে প্রবেশ করতে না পারে এর সাথে সম্পৃক্ত করবে। কেউ কেউ ভূমধ্য সাগরে ডুবে মরা মাসুম শিশুদের লাশের মধ্যে এর কারণ খুঁজে দেখবে। কেউ কেউ এর কারণকে এই ডিজিটাল ও ভোগ বিলাসের যুগে মানুষ কর্তৃক তার রূহকে, কালবকে, পরিবারকে এবং সর্বোপরি তার রবকে ভুলে যাওয়ার মধ্যে খুজবে। কেউ কেউ এই বন্দিদশার কারণকে মানুষ কর্তৃক তার পরিবার, সন্তান-সন্ততিকে সময় না দেওয়ার মধ্যে খুজবে। কাবা শরীফ, মসজিদে নববী, মসজিদে আকসা এবং অন্যান্য মসজিদ সমূহকে বন্ধ করে দেওয়ার কারণকে আমরা মসজিদে যাই না বলে এবং এগুলোকে আবাদ করি না বলে আমাদেরকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য বন্ধ করা দেওয়া হচ্ছে এই কথা বলবে। কেউ কেউ এই কথা বলবে যে, দেখ তোমরা যারা এক হজ্জ থেকে আরেক হজ্জ, এক উমরা থেকে আরেক উমরা এবং এক জুমা থেকে অপর জুমাকে নিজেদের গুনাহ মাফের ওসিলা হিসেবে গ্রহণ করেছিলে এখান থেকে শিক্ষা নাও। কেউ কেউ একে আফ্রিকা বছরের পর বছর ধরে খাবারের অভাবে মৃত শিশুদের অভিশাপের সাথে সম্পৃক্ত করবে। কেউ কেউ বলবে গাজার মানুষ ১০ বছরের বেশী সময় ধরে অবরুদ্ধ, অবরুদ্ধ থাকলে কেমন লাগে এই শিক্ষা দেওয়ার জন্য আল্লাহ আমাদেরকে এই শিক্ষা দিচ্ছেন। কেউ কেউ আল্লাহ প্রদত্ত্ব হালাল রিজিককে পরিত্যাগ করার মধ্যে এর কারণকে খুঁজে বের করবেন। 
আমরা যদি আমাদের উপর আগত বিষয় সমূহকে একটি আয়াত বা নিদর্শন হিসেবে বিবেচনা করি তাহলে উপরের সবগুলো বিশ্লেষণই সঠিক। উপরে বর্ণিত বিষয় সমূহের উপর যদি মানুষ চিন্তা ভাবনা করে শিক্ষা গ্রহণ করে তাহলে মানুষ নতুন একটি রহমত পাবে। 

মানুষ যখন এইভাবে চিন্তা ভাবনা করবে তখন সে নিজের আত্মসমালোচনা করতে পারবে। মানুষ দুনিয়ার সাথে তার সম্পর্ককে নতুন করে চিন্তা করবে। স্ত্রী, সন্তান, বন্ধু-বান্ধব ও পরিবার পরিজনের সাথে সম্পর্ককে নতুন করে বিন্যাস করবে। 
যদি এই সকল বড় বড় অর্থবহ বিষয়কে পরিত্যাগ করে এই সকল বিপদ-মুসিবতকে কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তি, গোষ্ঠী কিংবা ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত করে এগুলোকে ইলাহী আযাব ও কিয়ামত বলে চালিয়ে দেওয়া হয় তাহলে বুঝতে হবে যে কোরআনের আয়াত সমূহকে ভালোভাবে বুঝা যায়নি। এবং আমাদেরকে ইবরেত বা শিক্ষা থেকে দূরে সরিয়ে নিয়ে ইবারতের(লেখা) মধ্যে আবদ্ধ করে ফেলবে। এই সকল মুসিবত থেকে শিক্ষা না নিলে আমাদের সমস্যা সমূহের সমাধান তো হবেই না, বরং আমাদের সংকট সমূহ আরও গভীর থেকে গভীরতর হবে। 

এই ধরণের মুসিবত সমূহকে ওহীর আলোকে সঠিকভাবে না বুঝতে পারার অন্তরায় সমূহ হল, 
প্রথমতঃ এই সকল ঘটনাবলীকে মানুষের দায়িত্ব ও কর্তব্য সমূহকে পাশ কাটিয়ে যাবে এমন ভাবে ব্যাখা করা। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সূরা রুমের ৪১ নম্বর আয়াতে বলেন, 
﴿ظَهَرَ الْفَسَادُ فِي الْبَرِّ وَالْبَحْرِ بِمَا كَسَبَتْ أَيْدِي النَّاسِ لِيُذِيقَهُم بَعْضَ الَّذِي عَمِلُوا لَعَلَّهُمْ يَرْجِعُونَ﴾

অর্থঃ মানুষের কৃতকর্মের দরুন জলে-স্থলে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে, যার ফলে তাদেরকে তাদের কিছু কৃতকর্মের স্বাদ আস্বাদন করানো যায়, হয়তো তারা বিরত হবে। 

দ্বিতীয়তঃ এই ধরণের ঘটনাবলী সমূহকে বিশ্লেষণ করার সময় এই মহাবিশ্বের সৃষ্টি কর্তা মহান আল্লাহকে বাদ দিয়ে ব্যাখা করা। আল্লাহ রাব্বুল আলামীনকে বাদ দিয়ে, সুন্নাতুল্লাহকে বিবেচনায় না নিয়ে এই সকল ঘটনাকে ব্যাখা করা হবে সবচেয়ে বড় ভূল। 

তৃতীয়তঃ মানুষকে আল্লাহর স্থলাভিষিক্ত করা (নাউযুবিল্লাহ)। আল্লাহর নামে কথা বলা। যেমন এরূপ কথা বলা ‘ এই অপরাধের কারণে আল্লাহ এই সমাজকে এই ধরণের শাস্তি দিয়েছেন’। এরকম করে কথা বলা সঠিক নয়। 
চতুর্থতঃ আল্লাহ যে সকল কারণ সমূহ সৃষ্টি করেছেন সে গুলোকে বিবেচনা না করা। তদবীরকে বাদ দেওয়া। বিশেষ করে এই ধরণের মহামারির সময়ে স্বাস্থ্য বিভাগের আদেশ, নিষেধ ও উপদেশ সমূহ দ্বীনেরই আদেশ, নিষেধ ও উপদেশ। ইসলাম একজন মানুষের জীবন রক্ষা ও মানুষের জীবনের নিরাপত্ত্বা বিধানকে সবচেয়ে বড় মূলনীতি হিসেবে গ্রহণ করেছে। 

আমাদের প্রিয় রাসূল ১৪০০ বছর পূর্বে তার নিজের সময়ের জন্য মহামারি বা এই ধরণের রোগের বিপরীতে কোয়ারান্টাইনের মূলনীতি সমূহকে খুব সুন্দর ভাবে বর্ণনা করেছেন। তিনি বলেছেন, অসুস্থ ব্যক্তিকে সুস্থ মানুষের কাছে নিয়ে যাবে না। যদি কোথাও মহামারি দেখা দেয় তাহলে সেখানে প্রবেশ করবে না। তোমরা যেখানে অবস্থান করছ সেখানে যদি কোন ধরণের মহামারী দেখা দেয় তাহলে সেখান থেকে বেরও হবে না। প্লেগ রোগের কারণে হযরত উমর (রাঃ) শামে প্রবেশ না করলে শামের গভর্নর ও শাম বিজেতা রাসূলের অন্যতম সাহাবী উবাইদা ইবনুল জাররাহ তাকে বলেন, أفرارا من قدر الله يا أمير المؤمنين؟ ‘হে আমিরুল মু’মিনিন আল্লাহর তাকদির থেকে কি পালিয়ে যাচ্ছেন? জবাবে উমর (রাঃ) বলেন, نعم نفر من قدر الله إلى قدر الله , ‘হ্যাঁ, আল্লাহর এক তাকদির থেকে পালিয়ে অন্য তাকদিরের দিকে যাচ্ছি’। 

এই মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য আমরা যে সকল তদবীরকে নিতে পারি তাকে তিন ভাগে ভাগ করা যেতে পারে। 
১। আমি একটু আগেও বলেছি এই ভাইরাস যেন আমাদেরকে স্পর্শ করতে না পারে এই জন্য সতর্ক থাকা আমাদের দ্বীনেরও নির্দেশ। আমাদের ঘরে অবস্থান করে আমাদের পারিবারিক সম্পর্ক ও ভালোবাসাকে পুনরায় জাগ্রত করে পারি। মসজিদ সমূহে যেতে না পারার কারণে আমাদের ঘর বাড়িকে ইবাদতগাহে পরিণত করতে পারি। 

২। যারা বিজ্ঞানী ও গবেষক তাদের উচিত হবে এই রোগের প্রতিষেধক ও চিকিৎসা বের করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা চালানো। এরকম একটি রোগের ঔষধ কিংবা প্রতিষেধক আবিষ্কার করা অনেক বড় একটি মর্যাদার বিষয়। মানুষকে ধ্বংস করার জন্য অস্র উৎপাদনের প্রতিযগিতায় লিপ্ত না হয়ে মানুষকে বাঁচানোর জন্য চেষ্টা করা প্রয়োজন। 

৩। এই সকল মুহূর্তে সবচেয়ে বড় বিষয় হল দোয়া, দোয়া এবং দোয়া। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন সূরা আল-আনআমের ৪২ ও ৪৩ নম্বর আয়াতে বলেন, 
﴿وَلَقَدْ أَرْسَلْنَا إِلَىٰ أُمَمٍ مِّن قَبْلِكَ فَأَخَذْنَاهُم بِالْبَأْسَاءِ وَالضَّرَّاءِ لَعَلَّهُمْ يَتَضَرَّعُونَ﴾
অর্থঃ তোমার পূর্বে অনেক মানব গোষ্ঠীর কাছে আমি রসূল পাঠিয়েছি এবং তাদেরকে বিপদ ও কষ্টের মুখে নিক্ষেপ করেছি, যাতে তারা বিনীতভাবে আমার সামনে মাথা নত করে৷ 
﴿فَلَوْلَا إِذْ جَاءَهُم بَأْسُنَا تَضَرَّعُوا وَلَٰكِن قَسَتْ قُلُوبُهُمْ وَزَيَّنَ لَهُمُ الشَّيْطَانُ مَا كَانُوا يَعْمَلُونَ﴾
অর্থঃ কাজেই যখন আমার পক্ষ থেকে তাদের প্রতি কঠোরতা আরোপিত হলো তখন তারা বিনম্র হলো না কেন ? বরং তাদের মন আরো বেশী কঠিন হয়ে গেছে এবং শয়তান তাদেরকে এ মর্মে নিশ্চয়তা বিধান করেছে যে, তোমরা যা কিছু করছো ভালই করছো৷

প্রিয় বন্ধুগন,
আমরা আমাদের হাত তুলে মহান প্রভুর কাছে এই অবস্থা থেকে মুক্তির জন্য দোয়া করব এটা খুবই গুরত্ত্বপূর্ণ। তবে আমাদের যেন এমন একটি সময় বরাদ্দ থাকে যখন আমরা আমাদের পরিবারের সবাইকে নিয়ে হাত তুলে মহান রবের কাছে দোয়া করব। 
তবে সবচেয়ে বড় দোয়া হল ফি’লি দোয়া বা প্রাক্টিক্যাল দোয়া। আজ থেকে আমাদের দোয়াকে ভালো কাজে রূপান্তর করার চেষ্টা করি। আসুন সকলেই মানুষের কল্যাণে নামি। যারা তাদের বাসা ভাড়া পরিশোধ করতে পারছেন না তাদেরকে বাসা ভাড়া ব্যবস্থা করে দেওয়া সবচেয়ে বড় দোয়া। যে সকল কর্মচারীগণ এই কঠিন সময়ে কাজে যেতে পারতেছেন তাদের বস কিংবা মালিকের উচিত হবে তাদের বেতনে কোন ধরণের কমতি না করে তাদের বেতন দিয়ে দেওয়া। এটাই হবে তাদের জন্য বড় দোয়া। যারা কোন কারণে বাজার করতে পারেন না তাদেরকে বাজার করতে সাহায্য করাই হবে বড় দোয়া। আল্লাহর রহমত নিয়ে আসবে এবং মুসিবত সমূহ দুরীভূত করবে এমন দোয়া হল এই কঠিন সময়ে মানুষের কল্যাণের জন্য আন্দোলন শুরু করা। একে অপরের কল্যাণে এগিয়ে আসা এখন সবচেয়ে বড় দোয়া। আমরা হয়তো মুসাফাসা কিংবা কোলাকুলি করতে পারছি না, কিন্তু একে অপরের সাহায্যে এগিয়ে এসে মানুষে হৃদয়কে স্পর্শ করতে পারব। আল্লাহ আমাদের দোয়াকে কবুল করুন, আল্লাহ আমাদের দোয়া কে কবুল করুন। 

আমি আমার আজকের এই আলোচনা অসুস্থতা ও নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত হয়ে ধৈর্যের পরিক্ষা দিয়ে বিখ্যাত হয়েছেন হযরত আইয়্যুব (আঃ) এর দোয়া দিয়ে শেষ করতে চাই, 
أَنِّي مَسَّنِيَ الضُّرُّ وَأَنتَ أَرْحَمُ الرَّاحِمِينَ
অর্থঃ “আমি রোগগ্রস্ত হয়ে গেছি এবং তুমি করুণাকারীদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ করুণাকারী৷”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।